‘আমরা শেয়ালের অনুগামী’, জলপাইগুড়িতে পড়ল পোস্টার

95

জলপাইগুড়ি: ‘শেয়াল চিহ্নে ভোট দিন। সৌজন্যে: আমরা শেয়ালের অনুগামী।’ বুধবার সকালে জলপাইগুড়ি শহরের থানা মোড় এলাকায় এই ধরনের পোস্টার নজরে আসতেই চোখ ছানাবড়া শহরবাসীর একাংশের। শহরবাসীদের বক্তব্য, নির্দল প্রার্থী হলেও নির্বাচনের প্রতীক দিয়ে থাকে নির্বাচন কমিশন। কিন্তু শেয়াল চিহ্নে ভোট দেওয়ার আবেদন রেখে থানা মোড়ের বিভিন্ন চা এবং পানের দোকান থেকে শুরু করে ব্যাঙ্ক, এমনকি জেলা কংগ্রেসের প্রধান কার্যালয়ের দেওয়ালে পোস্টার টাঙানোর ঘটনায় কিছুটা হলেও ভিরমি খাওয়ার মতো অবস্থা তৈরি হয়েছে শহরের সাধারণ মানুষের। ভোটের মুখে কে বা কারা এই ধরনের পোস্টার লাগাল তা জানা না গেলেও সদর বিধানসভা কেন্দ্রে এই পোস্টার যে শহরে হাসির খোরাক হয়ে উঠেছে তা বলাই বাহুল্য।

পোস্টারে লক্ষ্যনীয়, একটি শেয়ালের ছবি। তার নীচে লেখা, এই চিহ্নে ভোট দিন, সৌজন্যে: আমরা শেয়ালের অনুগামী। এদিন সকালে জেলা কংগ্রেস পার্টি অফিসের সামনে চায়ের দোকানে সামনেই এই পোস্টার চোখে পড়ে বলে জানালেন শহরের বিশিষ্ট নাগরিক সঞ্জীব চট্টোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘ভোটের আগে এই পোস্টার একটা হাস্যকর বিষয় বলেই মনে হচ্ছে। কারণে যেসব রাজনৈতিক দল এখন পর্যন্ত প্রার্থীর নাম ঘোষনা করেছে, তারা দলীয় চিহ্নেই দাঁড়াবে। আবার নির্দল প্রার্থীর প্রতীক কমিশন দিয়ে থাকে। কিন্তু কমিশন তো আর এই প্রানীটিকে নির্বাচনের প্রতীক করে না। সুতরাং কেউ মজা করে এটা করেছে।’

- Advertisement -

এদিকে দলীয় কার্যালয়ের দেওয়ালে এহেন পোস্টার পড়ার ঘটনায় জেলা কংগ্রেস সভাপতি পিনাকী সেনগুপ্ত বলেন, ‘এই পোস্টার প্রমান করল জলপাইগুড়ি শহরের পাগল লোকের সংখ্যা কম নেই। এই ঘটনা একটা নিরেট ফাজলামি ছাড়া কিছু নয়।’

জেলা বিজেপি সহ-সভাপতি অলোক চক্রবর্তী বলেন, ‘শেয়ালকে আমরা ধূর্ত বলেই জানি। সেই দিক বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতারা তাদের ফায়দার জন্য রাজনৈতিক দলকে ব্যবহার করে। সামনেই নির্বাচন, যারা এই পোস্টার লাগিয়েছে তারাও যে কম যায় না সেটাই প্রমান করছে।’
অন্যদিকে, পোস্টারের ছবি দেখে হেসে ফেলন তৃণমূলের টাউন ব্লক সভাপতি তপন বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘এটা একটা হাস্যকর বিষয়। কেউ তামাশা করার জন্যই এটা করেছে।’ তবে নির্বাচনের আগে এই পোস্টার হাসির খোরাক হয়ে থাকল বলে মনে করছেন তিনি।