দান্তেওয়াড়া, ২ নভেম্বরঃ দান্তেওয়াড়ায় মাওবাদী হামলায় মৃত্যু হয়েছে দূরদর্শনের ক্যামেরাম্যান অচ্যুতানন্দ শাহুর। সেই ঘটনার প্রতিবাদে নিন্দার ঝড় বিভিন্ন মহলে। সাংবাদিকদের ওপর হামলা বন্ধের দাবিতে সরব হয় মানুষ।

শুক্রবার এক প্রেস বিবৃতিতে মাওবাদীরা দাবি করেছে, মিডিয়ার উপর হামলার কোনও ইচ্ছা তাদের ছিল না। তাদের বক্তব্য, হামলার মাঝে পড়ে গিয়ে মৃত্যু হয়েছে অচ্যুতানন্দের।

চিঠিতে আরও বলা হয়েছে মাওবাদীদের সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগে নিরীহ গ্রামবাসীদের পুলিশি হেনস্থা করা, ভুয়ো মামলায় ফাঁসানোর হার বেড়ে গিয়েছে। এই সব অত্যাচার এখন পুলিশের কাছে ছোট সাধারণ ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এরই প্রতিবাদে নেমে পুলিশের বিরুদ্ধে আক্রমণ করছে মাওবাদীরা। এই আন্দোলন জারি থাকবে বলেও হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে।

তবে মাওবাদীদের এই দাবির বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। মাওবাদীদের প্রেস বিবৃতির জবাবে দান্তেওয়াড়ার পুলিশ সুপার অভিষেক পল্লব প্রশ্ন তুলেছেন, ‘যদি মিডিয়ার উপর হামলার ইচ্ছা না থেকে থাকে তাহলে ক্যামেরা লুট করা হল কেন?’ এর উত্তরে তিনি নিজেই বলেন, ‘প্রথম কয়েক মিনিটের ঘটনাক্রম রেকর্ড করা হয়েছিল বলেই ক্যামেরা লুট করা হয়। তাছাড়া ক্যামেরাম্যানের শরীরে একাধিক বুলেটের আঘাত এবং খুলি ভেঙে যাওয়া প্রমাণ করে ভুলবশত তাঁকে খুন করা হয়নি।’

ছত্তিসগড় বিধানসভা নির্বাচনের প্রস্তুতিপর্ব কভার করতে গিয়েছলেন দূরদর্শনের তিন সাংবাদিক। তাঁদের সঙ্গে ছিলেন সাব ইন্সপেক্টর রুদ্রপ্রতাপ সিং এবং কনস্টেবল মঙ্গলু। দান্তেওয়াড়ায় আরানপুর এলাকার নীলাওয়ার জঙ্গলের কাছে আচমকা হামলা চালায় মাওবাদীরা। মৃত্যু হয় তিন জনের। তাঁদের মধ্যেই ছিলেন দূরদর্শনের ক্যামেরাম্যান। তবে রক্ষা পান দূরদর্শনের সাংবাদিক মোরমুকুত শর্মা এবং ধীরজ কুমার।