সৌরভদের সঙ্গে বিশেষ বৈঠক রামিজের

লাহোর : কখনও তোপ দাগছেন, পরক্ষণেই বাস্তবের মাটিতে!

ভারত নিয়ে এমনই হাল পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের। বিভিন্ন ইস্যুতে বারবার বিসিসিআইয়ে বিরুদ্ধে তোপ দাগলেও, রামিজ রাজারা জানেন ভারতকে ছাড়া তাদের ক্রিকেট উন্নয়ন ধাক্কা খাবে। নিউজিল্যান্ড, ইংল্যান্ড দলের সফর বাতিলের মতো ঘটনা বেশি করে ঘটবে।

- Advertisement -

অচলাবস্থা কাটাতে তাই ফের ভারতেরই শরণাপন্ন পিসিবি। গত সপ্তাহে দুবাইয়ে অনুষ্ঠিত এশিয়া ক্রিকেট কাউন্সিলের (এসিসি) বৈঠককেই কাজে লাগিয়েছে পিসিবি। ভারত-পাক ক্রিকেটীয় সম্পর্কের বরফ গলাতে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় ও জয় শা-র সঙ্গে গত শুক্রবার আলাদা করে কথা বলেন পিসিবি চেয়ারম্যান রামিজ রাজা।

একাধিক বিষয়ে আলোচনা হয় দুই বোর্ডের শীর্ষকর্তাদের মধ্যে। মূল আলোচ্য ছিল ভারত-পাক দ্বিপাক্ষিক ক্রিকেটীয় সম্পর্ক। প্রাক্তন পাক অধিনায়ক বলেন, সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় ও জয় শা-র সঙ্গে আলাদা করে কথা বলেছি। দুই দেশের মধ্যে ক্রিকেট সম্পর্ক নতুনভাবে গড়ে তোলার চেষ্টা চালাচ্ছি। জানি, ভারত-পাক দ্বিপাক্ষিক ক্রিকেটীয় সম্পর্কে পুনরুজ্জীবিত করতে গেলে অনেক পরিশ্রম, ঘাম ঝরাতে হবে। ক্রিকেটের স্বার্থেই দুই বোর্ডের মধ্যে সম্পর্ক গুরুত্বপূর্ণ। তবে সময় লাগবে। বৈঠকে সদর্থক আলোচনা হয়েছে। দেখা যাক ভাবনাটাকে আমরা কতদূর এগিয়ে নিয়ে যেতে পারি।

২০১২-য় শেষবার ভারত-পাকিস্তান দ্বিপাক্ষিক সিরিজে মুখোমুখি হয়েছিল। গত ৯ বছরে ইন্দো-পাক ক্রিকেট সীমাবদ্ধ থেকেছে শুধু আইসিসি ও এশীয় টুর্নামেন্টেই। এক্ষেত্রে রাজনীতিকেই মূলত দায়ি করছেন রামিজ। জোর দিলেন, আগামীতে খেলা থেকে রাজনীতিকে দূরে রাখার ওপর। রামিজের দাবি, বরাবরই পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড এই ভাবনাকে গুরুত্ব দিয়েছে। জানান, রাজনীতিকে সরিয়ে রেখে ক্রিকেট খেলিয়ে দেশগুলির সঙ্গে সুসম্পর্ক গড়ে তুলতে চায় পাকিস্তান।

২০২৩-এ পাকিস্তানে এশিয়া কাপ হওয়ার কথা। অংশগ্রহণে ভারতকে রাজি না করাতে পারলে, টুর্নামেন্ট অন্যত্র সরবে, তা একপ্রকার নিশ্চিত। তথ্যাভিজ্ঞ মহলের দাবি, যা ঠেকাতেই মরিয়া রামিজ ক্ষোভ ঝেড়ে বন্ধুত্বের বার্তা দিয়েছেন সৌরভদের উদ্দেশ্যে।