গেরুয়া শিবিরে ঘুণ ধরাতে মালদায় ১০ আসনে নির্দল প্রার্থী দিচ্ছে জনসংঘ

61

মালদা: এ যেন ফিনিক্স পাখি। ১৯৭৭ সালে যে রাজনৈতিক দল বিজেপিতে বিলীন হয়ে গিয়েছিল, ২০২১-র এপ্রিলে সেই জনসংঘের উত্থান ঘটল মালদার মাটিতে। শুধু খাতায় কলমে নয়, জনসংঘের ব্যানারে রীতিমতো নির্বাচনি ময়দানে ঝাপিয়েছেন বিজেপির বিক্ষুদ্ধ নেতারা। সঙ্গ দিয়েছেন বিজেপির প্রাক্তন জেলা সভাপতি সঞ্জিত মিশ্র। তবে জনসংঘ কোনও প্রতীক না পাওয়ায় এবারের নির্বাচনে মালদার ১০ আসনে নির্দল প্রার্থী হিসেবে লড়াইয়ের ময়দানে ঝাপিয়েছেন গেরুয়া শিবিরের এই বিক্ষুব্ধ নেতারা। রাজনৈতিক মহলের আশঙ্কা, ভোট আবহে বিজেপির পথের কাঁটা হয়ে দাঁড়াতে পারে বিক্ষুব্ধরা। তবে এবিষয়ে খুব একটা গুরুত্ব দিতে নারাজ গেরুয়া শিবির।

বিজেপি ছেড়ে জনসংঘের ব্যানারে নির্দল প্রার্থী হয়ে লড়াইয়ের মযদানে কেন? বিক্ষুব্ধ নেতাদের বক্তব্য, মালদায় বিজেপির টিকিট টাকার বিনিময়ে বিক্রি হয়েছে। তৃণমূলে থাকাকালীন যাঁরা বিজেপির ওপর অত্যাচার চালিয়েছে, মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়েছে, দল তাঁদেরই টিকিট দিয়েছে। আর যাঁরা বছরের পর বছর বিজেপি করে আসছেন, দল তাঁদের সম্মান দেয়নি। তাই বাধ্য হয়ে জনসংঘের সমর্থনে নির্দল প্রার্থী হয়ে লড়তে হচ্ছে।

- Advertisement -

এবিষয়ে বিজেপির মালদা জেলা সভাপতি গোবিন্দচন্দ্র মণ্ডল বলেন, ‘জনসংঘ ১৯৭৬ সালে বিলুপ্ত হয়ে ভারতীয় জনতা পার্টি তৈরি হয়। এখন কেউ জনসংঘ নামটা ব্যবহার করে রাজনৈতিক ফায়দা নিতে চাইলে আমি বলব, তাঁরা তৃণমূলকে শক্তিশালী করতে চাইছেন। আমি তাঁদের উদ্দেশ্যে বলব, বিজেপির নীতি-আদর্শ আছে।’ বিক্ষুব্ধ নেতাদের উদ্দেশ্য় করে গোবিন্দবাবু বলেন, ‘আপনারা বিপথে না গিয়ে মূলস্রোতে ফিরে আসুুন। দল আপনাদের সম্মান দেবে।’