উত্তরবঙ্গে বৃষ্টির পূর্বাভাস, দক্ষিণবঙ্গেও বাড়বে বৃষ্টি

592
Ayusman Chakraborty File Photo

কলকাতা: আগামী কয়েকদিন রাজ্যজুড়ে চলবে বৃষ্টি। এমনটাই পূর্বাভাস দিল আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর।

আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, মৌসুমী অক্ষরেখা সক্রিয় রয়েছে উত্তরবঙ্গে। হিমালয়ের পাদদেশে মৌসুমী অক্ষরেখার অবস্থান। এছাড়া সমুদ্র থেকেও প্রচুর জলীয় বাষ্প ঢুকছে। এর ফলে দার্জিলিং, জলপাইগুড়ি, কালিম্পং, আলিপুরদুয়ার, কোচবিহারে বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। কয়েক জায়গায় ২০০ মিলিমিটারের বেশি বৃষ্টি হতে পারে। ভারী বৃষ্টি হবে মালদা সহ দুই দিনাজপুরেও। আজ উত্তরবঙ্গের আট জেলাতেই ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে। দার্জিলিং সহ পাঁচ জেলায় ভারী বৃষ্টি চলবে আগামী শুক্রবার পর্যন্ত।

- Advertisement -

ইতিমধ্যেই জেলার বিভিন্ন জায়গা প্রবল বৃষ্টির জেরে জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। গতকাল প্রবল বর্ষণে জলমগ্ন হয়ে পড়েছে শিলিগুড়ির বিস্তীর্ণ এলাকা। এ বার সেখানে লাল সতর্কতা জারি করল আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর। বুধবার পর্যন্ত তুমুল বৃষ্টির জেরে ধসের আশঙ্কা রয়েছে। পাশাপাশি পাহাড়ি নদীগুলির জলস্তর বিপদসীমা ছাড়়াতে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এদিন ডুডুয়া নদীতে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। ফলে কোচবিহার জেলার মাথাভাঙ্গা-২ ব্লকের ফুলবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের মেলারডাঙ্গা সহ পার্শ্ববর্তী এলাকা প্লাবিত হয়েছে। জল এখনও বাড়ছে।

অন্যদিকে, মঙ্গলবার রাতের প্রবল বৃষ্টিতে জলপাইগুড়ি জেলার বানারহাট এলাকার রেললাইন ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হল। হাতিনালার জল রেললাইনের উপর দিয়ে বইতে শুরু করেছে। বুধবার সকাল থেকেই রেল দপ্তরের কর্মীরা তৎপরতার সঙ্গে পরিস্থিতি মোকাবিলায় নামেন। ডুয়ার্স রুটে রেল চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ রাখা হয়। বানরাহাটে পৌঁছান রেল দপ্তরের আধিকারিকরা। সকাল থেকেই শুরু হয়েছে রেললাইন মেরামতের কাজ।

পাশাপাশি, নাগরাকাটারও সুলকাপাড়ার ভক্তাধুরা এলাকার গ্রামের শেষ সীমার বিল এখন নদী হয়ে বইছে চাষের জমির ওপর দিয়ে। কৃষকদের মাথায় চিন্তার ভাঁজ। পঞ্চায়েত এর তৈরি করা মাটির বাঁধ জলের স্রোতে ভেঙে গিয়েছে। সেখানকার আদিবাসী পরিবারের যাতায়াতও বন্ধ হতে বসেছে।

এছাড়া আবহাওয়া দপ্তরের পূর্বাভাস অনুযায়ী, দক্ষিণবঙ্গেও আগামী শুক্রবার পর্যন্ত বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। কয়েক জায়গায় বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টি হতে পারে। আগামী ৪৮ ঘন্টায় বীরভূম, মুর্শিদাবাদ, পুরুলিয়ায় বিক্ষিপ্ত ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে। শুক্রবার ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে মুর্শিদাবাদ, নদীয়া, বীরভূম, দুই ২৪ পরগনা সহ বিভিন্ন জেলায়।

এদিকে মৌসুমী অক্ষরেখা সক্রিয় রয়েছে অমৃতসর, লুধিয়ানা, মিরাট, গোরক্ষপুর ভাগলপুর, সিকিমের হিমালয় সংলগ্ন এলাকায়। এছাড়াও রাজস্থান ও কেরল উপকূলে দুটি ঘূর্ণাবর্ত রয়েছে। এই অক্ষরেখার প্রভাবে একদিকে উত্তর-পশ্চিম ভারতের রাজ্যগুলিতে এবং অন্যদিকে পঞ্জাব, হরিয়ানা, দিল্লি, জম্মু-কাশ্মীর, উত্তরাখন্ড, হিমাচল প্রদেশ, উত্তরপ্রদেশে ব্যাপক বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। বৃষ্টি হবে দক্ষিণের কেরালা, কর্ণাটক-সহ বেশ কিছু রাজ্যে।