পুরাতন মালদায় বাইপাসের ধারে জলাজমি ভরাট হচ্ছে

রেজাউল হক, পুরাতন মালদা : পুরাতন মালদায় ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কের বাইপাস সংলগ্ন জলাজমিগুলি বেআইনিভাবে ভরাট করার অভিযোগ উঠেছে। বিঘার পর বিঘা জলাজমি ভরাট চলছে বলে অভিযোগ। এই জলাজমি ভরাটের ক্ষেত্রে রয়্যালটি কেটে মাটি ফেলার দাবি করছেন জমির মালিকদের একাংশ। কিন্তু কীভাবে বিঘার পর বিঘা জলাজমি ভরাট করা হচ্ছে, তা নিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠেছে। এক্ষেত্রে পুরাতন মালদর ভূমি ও ভূমি সংস্কার দপ্তরের বিরুদ্ধে নিয়মবহির্ভূত কাজের অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি শোনার পরে ব্লক ভূমি ও ভূমি সংস্কার আধিকারিক সুশান্ত চক্রবর্তী জানিয়েছেন, জমির শ্রেণি পরিবর্তন হলে মাটি ভরাট করা যায়। কিন্তু এই ধরনের কাজ তাঁদের দপ্তর থেকে করা হয়নি। করা হয়েছে সরাসরি জেলা ভূমি ও ভূমি সংস্কার দপ্তর থেকে। কাজেই এক্ষেত্রে তাঁর পক্ষে কিছু বলা সম্ভব নয়। তা হলেও কি বিঘার পর বিঘার জমির শ্রেণি পরিবর্তন করা যেতে পারে? এনিয়ে একাধিক মহলে প্রশ্ন উঠেছে। এই বেআইনি মাটি ভরাটের ফলে প্রাকৃতিক ভারসাম্যও নষ্ট হতে বসেছে।

মালদায় ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কে যানজট মেটাতে তৈরি হয়েছিল বাইপাস। তার সিংহভাগই পুরাতন মালদার অন্তর্গত। বাইপাস চালু হতেই সেখানকার পরিত্যক্ত জমি এখন সোনার মতো মূল্যবান হয়ে উঠেছে। কিন্তু এখানে বেশিরভাগ চাষযোগ্য এবং জলাজমি। কিন্তু সেইসব জমিতেও প্রকাশ্যে ট্র‌্যাক্টর এবং লরি করে মাটি ভরাট করার অভিযোগ উঠেছে। কিন্তু প্রশ্ন, বিঘার বিঘার চাষযোগ্য জমির সঙ্গে জলাজমির শ্রেণি কীভাবে পরিবর্তন করে বাণিজ্যিক এবং বাস্তু করা হচ্ছে? এর উত্তর অবশ্য সংশ্লিষ্ট ভূমি ও ভূমি সংস্কার দপ্তরের কর্তারা দিতে পারেননি। কিছুদিন আগে মালদায় প্রশাসনিক বৈঠক করতে এসে বেআইনি জলাজমি ভরাট নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে কড়া বার্তা দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু তারপরও বাইপাস সংলগ্ন এলাকায় জলাজমি ভরাটে জমি মাফিয়াদের একাংশ এই কৌশল নিয়েছে বলে অভিযোগ। এক্ষেত্রে অভিযোগের আঙুল উঠেছে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের দিকেই।

- Advertisement -

বাইপাসের ধারে জলাজমি ভরাট চলাকালীন এক ব্যক্তি বলেন, এখানে আমার চাষযোগ্য এবং জলাজমি ছিল। তার শ্রেণি পরিবর্তন করে ব্যবসা করার জন্য ওই জমিতে মাটি ভরাট করছি। এর জন্য রয়্যালটিও কাটা হয়েছে। উত্তর মালদার সাংসদ খগেন মুর্মু বলছেন, এই ধরনের বেআইনি কাজ প্রশাসনের চোখের সামনে কীভাবে হচ্ছে তা জানি না। বিঘার পর বিঘা জলাজমির শ্রেণি পরিবর্তন করে বেআইনিভাবে মাটি ভরাট করা হচ্ছে। এর বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু করা হবে। তৃণমূল পরিচালিত পুরাতন মালদা পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি মৃণালিনী মণ্ডল মাইতি জানিয়েছেন, জলাজমি কখনই ভরাট করা যায় না। বাইপাসের ধারে যেসব জমি ভরাট করা হচ্ছে, সেগুলি কী অবস্থায় রয়েছে, কীভাবে তার শ্রেণি পরিবর্তন করা হয়েছে তা খোঁজ নিয়ে দেখা হবে।