শিস দিযে গান আমরা অনেকেই গেযে থাকি। কিন্তু সেটা যে একটা জনজাতির ভাষা হতে পারে তা কি ভেবেছেন কখনও? বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে মানুষ নানা ভাষায কথা বলেন। তবে এমন গ্রামও রযেে যেখানে সবাই কথা বলেন শিস দিযে পাখির মতো কিচির-মিচির করে। তুরস্কে গিরেসান প্রদেশে কানাকি জেলায কুসকয নামে এক গ্রামের মানুষরা পাখির মতো আওযাজ করে নিজেদের ভাব প্রকাশ করেন। ভাবের এই আদান-প্রদানকে ইউনেস্কো বলছে বার্ড ল্যাঙ্গুযে। বিলুপ্তপ্রায এই ঐতিহ্যকে বাঁচাতে উদ্যোগ নিয়েছে রাষ্ট্রসংঘ। এই এলাকায ১০ হাজার মানুষ এইভাবে কথা বলেন। পাহাড়ের আড়ালে একে অন্যকে না দেখেই শিস দিযে নিজেদের মধ্যে কথাবার্তা বলেন এখানকার মানুষ। বলা হচ্ছে, প্রায ৫০০ বছর ধরে এভাবেই ভাবপ্রকাশ করে আসছে এই জনজাতি। তবে গত ৫০ বছরে সভ্যতার বিকাশের সঙ্গে সঙ্গে এই ভাষা বিপন্ন হযে পড়েছে।
এলাকার প্রধান মুহতার বলেছেন, প্রযুক্তি থাবা বসালেও আমরা আমাদের ঐতিহ্য বজায রাখার চেষ্টা করে চলেছি। গ্রামের অন্তত ৮০ শতাংশ মানুষ এখনও শিস দিযে ভাব প্রকাশ করেন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শিস দেওযা ভাষার ব্যবহার বিভিন্ন সমযে স্পেন, মেক্সিকো ও গ্রিসে দেখা গিয়েছে। তবে তুরস্কে যেটা চলছে তা গুণমানে অনেক উন্নত। ৪০০টির বেশি শব্দ বা বাক্যবন্ধনী রয়েছে এতে। স্থানীয স্কুলে এর শিক্ষাদান শুরু হয়েছে যাতে এই ভাষাকে বাঁচিযে রাখা যায।