কিংসকে চেকমেট এটিকে মোহনবাগানের

মালে : জয় নয়, একটা ড্র-ই যথেষ্ট। আর সেই প্রাপ্তিযোগে লাভ এএফসি কাপের ইন্টার জোনাল সেমিফাইনালের প্লে অফের টিকিট।

সহজ কথা কিন্তু ভীষণ কঠিন কাজ। আর সেটাই মঙ্গলবার হাড়ে হাড়ে টের পেল এটিকে মোহনবাগান। তবে কষ্টার্জিত ফল সবসময় মিঠেই হয়। সবুজ-মেরুনের ক্ষেত্রেও হল তাই। বসুন্ধরা কিংসের সঙ্গে ম্যাচ ১-১ ড্র করেই এএফসির নকআউট পর্যায়ে পালতোলা নৌকা। শেষ চারের প্লে অফে হাবাসবাহিনী খেলবে উজবেকিস্তানের এফসি নাসাফ বনাম তুর্কমেনিস্তানের আহাল এফকের মধ্যে জয়ীর বিরুদ্ধে। সাম্প্রতিক অতীতে ভারতীয় দলগুলির মধ্যে যে ম্যাচ খেলার কৃতিত্ব রয়েছে শুধু বেঙ্গালুরু এফসির।

- Advertisement -

এএফসি কাপে বেঙ্গালুরু কিংবা মেজিয়া স্পোর্টসের তুলনায় ধারেভারে অনেকটাই এগিয়ে ছিল গ্রুপ পর্যায়ে বাগানের শেষ প্রতিপক্ষ বসুন্ধরা কিংস। ঘরোয়া লিগে ২১ ম্যাচের মধ্যে ১৯টি জয়। সেইসঙ্গে যোগ হয়েছিল এএফসি কাপে শেষ দুম্যাচে কোনও গোল না খাওয়ার কৃতিত্ব। নকআউট নিশ্চিত করতে গেলে প্রীতম কোটালদের বিরুদ্ধে জিততেই হত বাংলাদেশের দলটিকে। এমন ম্যাচে কার্ডসমস্যায় হুগো বৌমাসের মতো ম্যাচ উইনারকে না পাওয়াটা বড় ধাক্কা ছিল হাবাসের জন্য।

প্রথমার্ধে তাঁর অভাব বারবার চোখে পড়ল দলের মাঝমাঠে। দ্বিতীয়ার্ধে অবশ্য দলকে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে নিয়ে যাওয়ার ব্যাটন নিজের হাতে তুলে নিলেন ডেভিড উইলিয়ামস। ৬২ মিনিটে লিস্টন কোলাসোর পাস ধরে নিখুঁত নিশানায় বল জালে রেখে অজি ফরোয়ার্ড ফের একবার বাগানের মুশকিল আসান হয়ে দেখা দিলেন। তবে ম্যাচের ১৮ মিনিটে লিস্টন সহজ সুযোগ নষ্ট না করলে এত কাঠখড় পোড়াতে হত না সবুজ-মেরুনকে।