শিশুবাড়িতে ব্যাংকের সামনে বিক্ষোভ মহিলাদের

169

রাঙ্গালিবাজনা: এলাকার স্বনির্ভর গোষ্ঠীগুলির অভিযোগ, তাদের প্রাপ্য টাকা আত্মসাত করেছে সংঘ ও উপসংঘ। এতে ব্যাংকের হাত রয়েছে বলেও অভিযোগ তুলেছেন তাঁরা। এদিকে সংঘ ও উপসংঘের বক্তব্য, পুরোটাই ভুল বোঝাবুঝির ব্যাপার। ওই টাকা আত্মসাত নয়, তা দিয়ে ঋণের কিস্তি পরিশোধ করা হচ্ছে। এনিয়ে গত এক সপ্তাহ ধরে চাপানউতোর চলছে মাদারিহাট থানার শিশুবাড়ি ও চাঁপাগুড়ি এলাকায়। ঘটনার জেরে বুধবার শিশুবাড়ির একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের সামনে বিক্ষোভ দেখান তাঁরা। ব্যাংকের বিজনেস করেসপন্ডেস সেন্টারের গেটে তালাও দেন স্বনির্ভর গোষ্ঠীর ক্ষুব্ধ মহিলারা। তাঁদের অভিযোগ, তাঁদের অন্ধকারে রেখে এবং সই জাল করে সংঘ ও উপসংঘগুলি টাকা তুলে নিয়েছে। এতেই তাঁদের রাগ গিয়ে পড়েছে ব্যাংক এবং বিজনেস করেসপন্ডেন্টের ওপর। এদিন বেলা দুটো নাগাদ তালা দেন তাঁরা। সাড়ে তিনটে নাগাদ তালা খুলে দেওয়া হয়। বিজনেস করেসপন্ডেন্ট প্রদীপ বসাকের দাবি,  টাকা তোলার ব্যাপারে তাঁর কোনও হাত থাকে না। স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলারা তাঁকে ভুল বুঝে অভিযোগ করছেন।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি চাঁপাগুড়ি এলাকার স্বনির্ভর গোষ্ঠীগুলি জানায়, রাজ্য সরকার তাঁদের পঞ্চাশ হাজার টাকা করে এককালীন দিয়েছে। কিন্তু ওই টাকা তাঁদের না দিয়ে আত্মসাত করেছে সংঘ ও উপসংঘ। এদিকে সংঘ ও উপসংঘের বক্তব্য, ওই টাকা এককালীন দেওয়া হয়নি। বরং এক শতাংশ হারে ঋণ দেওয়া হয়েছে। ওই ঋণ পরিশোধও করা হচ্ছে।

- Advertisement -

মাদারিহাটের বিডিও শ্যারণ তামাং বলেন, ‘অভিযোগ পেয়ে ইতিমধ্যেই ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গড়া হয়েছে। যাদের দিকে অভিযোগের আঙুল উঠেছে তাঁদের ডেকে পাঠানো হয়েছে। ওই সংঘ ও উপসংঘের পাশাপাশি ব্লকের সব সংঘের অডিট করানো হবে।’

ব্যাংকে কর্তৃপক্ষের বক্তব্য, পুরোটাই স্বনির্ভর গোষ্ঠী ও সংঘের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার। এখানে ব্যাংকের কিছু করার নেই।