নিউ চ্যাংরাবান্ধা স্টেশন থেকে রেলপথে পণ্য পরিবহণের কাজ শুরু

149

চ্যাংরাবান্ধা: কোচবিহার জেলার নিউ চ্যাংরাবান্ধা স্টেশন থেকে প্রথম পণ্য পরিবহণের কাজ শুরু হল শনিবার। ফলে স্বাভাবিকভাবেই খুশি এলাকার ব্যবসায়ী, শ্রমিক থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ। এদিন রেলের ইঞ্জিন স্টেশনে এসে পৌঁছোনোর পরেই সকলে একে অপরকে আনন্দে মিষ্টিমুখ করান।

স্থানীয়রা জানান, অনেক দিন থেকেই তাঁরা এই স্টেশনের মাধ্যমে পণ্য পরিবহণের কাজ শুরুর আশায় ছিলেন। কারণ রেলের মাধ্যমে পণ্য পরিবহন শুরু হলে স্থানীয়রা দারুণভাবে উপকৃত হবেন। এলাকার বাসিন্দা আমিনুর হোসেন, ইউনুস আলিরা জানান, রেল লাইন চালু হবার সময় থেকেই নিউ চ্যাংরাবান্ধা স্টেশনে রেক পয়েন্ট চালুর আশ্বাস দেওয়া হয়েছিল। এমনকি রেক পয়েন্টের জন্য কিছু পরিকাঠামোও তৈরি করা হয়। কিন্তু এতদিন পণ্য পরিবহণ চালু না হওয়ায় স্থানীয়দের তরফে রেল কর্তৃপক্ষের কাছে দ্রুত রেল পথে পণ্য পরিবহণের কাজ চালুর দাবি জানানো হয়। অবশেষে শনিবার তাঁদের সেই দাবি পূরণ হল।

- Advertisement -

এদিন থেকেই ওয়াগনে আলু পাঠানোর কাজ শুরু হয়। মেখলিগঞ্জ ও ময়নাগুড়ি ব্লকের বিভিন্ন এলাকার কৃষকদের সংগৃহীত আলু এদিন ত্রিপুরা,অসমসহ ভিনরাজ্যে পাঠানোর উদ্দেশ্যে নিয়ে আসা হয়।

উল্লেখ্য, চ্যাংরাবান্ধা স্টেশনে রেল পথে পণ্য পরিবহণের কাজ আগেই শুরু হয়েছে। নিউ চ্যাংরাবান্ধা স্টেশন থেকেও এই কাজ চালু হওয়ায় ব্যবসায়ীরাও আরও বেশি করে রেলপথে বাণিজ্য করতে পারবেন। চ্যাংরাবান্ধা স্টেশনের উপরেও চাপ কিছুটা কমবে পাশাপাশি যানজট সমস্যাও অনেকটা মিটবে বলে মনে করছেন অনেকেই।

তবে নিউ চ্যাংরাবান্ধা স্টেশন থেকে পণ্য পরিবহণ চালু হলেও রাস্তা সহ রেক পয়েন্টের পরিকাঠামোগত বিভিন্ন সমস্যা রয়েছে বলে স্থানীয় মানুষজন এবং ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন। দ্রুত সেইসব সমস্যা সমাধানের দাবিও জানানো হয় তাঁদের তরফে। ধুপগুড়ির আলু ব্যবসায়ী রঞ্জিত কুমার সরকার জানান, নিউ চ্যাংরাবান্ধা স্টেশন থেকে এদিনই প্রথম ওয়াগনে পণ্য পরিবহণের কাজ শুরু হল। এতে তাঁদের মতো ব্যবসায়ীরাও উপকৃত হবেন। তবে বেহাল রাস্তাসহ পরিকাঠামোগত সমস্যাগুলি দ্রুত মেটানো দরকার।