ওডিশায় কাজে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু মালদার শ্রমিকের

906
তিন নাবালক সন্তানকে নিয়ে মৃতের স্ত্রী মিননাহার বিবি। ছবি: মুরতুজ আলম

সামসী: ওডিশায় টাওয়ারের কাজে গিয়ে মারা গেলেন মালদার চাঁদমুনি-১ গ্রাম পঞ্চায়েতের কুমারিয়া গ্রামের এক পরিযায়ী শ্রমিক। মৃত শ্রমিকের নাম বাদিরুদ্দিন (২৮)। সোমবার দুপুরের ঘটনা।

মৃতের পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, শুক্রবার বাদিরুদ্দিন টাওয়ারের কাজে ওডিশার উদ্দেশে বের হন। সোমবার ওডিশায় পৌঁছান। দুপুরে কোম্পানির দেওয়া একটি বাড়িতে গিয়ে ওঠেন তিনি। সেই ঘরে থাকা বিকল একটি ফ্যান ঠিক করতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে তিনি মারা যান। স্থানীয় থানার পুলিশ এসে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠায়। মৃত বাদিরুদ্দিনের দাদা আলাউদ্দিন জানান, মঙ্গলবার ভাইয়ের দেহ ময়নাতদন্তের পর বাড়ির উদ্দেশে পাঠানো হবে। বুধবার সকাল নাগাদ দেহ গ্রামে পৌঁছবে।

- Advertisement -

আলাউদ্দিন বলেন, ভাইয়ের মঙ্গলবার কাজে যোগ দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কাজে যোগদানের আগেই মর্মান্তিক এই ঘটনা ঘটল। মৃত বাদিরুদ্দিনের বাড়িতে আর্থিক সংকট ছিল। লকডাউনে অবস্থা আরও চরমে ওঠে। তাই ভিনরাজ্যে শ্রমিকের কাজে যান তিনি। ধারদেনা করে মোটা টাকার বাস ভাড়ায় ওডিশা যান। কর্মরত অবস্থায় মারা গেলে কিছুটা কোম্পানির তরফে ক্ষতিপূরণ মিলত। তবে কোম্পানি যাতে কিছু আর্থিক ক্ষতিপূরণ দেয় তা বলা হবে।

তিনি আরও জানান, বাড়িতে ভাইয়ের স্ত্রী মিননাহার বিবি ও তিন নাবালক সন্তান রয়েছে। তাঁর মধ্যে বড় মেয়ে আয়েশার বয়স ৬। এছাড়া দুই ছেলে রুবেল (৪) ও আরমান (২)। স্ত্রী মিননাহার বিবি বলেন, স্বামীর অবর্তমানে কী করে সংসার চলবে এটাই বড় ভাবনা। মাঠে এক কাঠাও জমি জায়গা নেই, শুধু স্বামীর পৈতৃক সূত্রে পাওয়া একশতক ভিটেবাড়িই সম্বল। এছাড়া বাড়িঘরও ভাঙাচোরা। বাংলা আবাস যোজনায় একটি পাকা ঘর পেলে খুব ভালো হয়।

চাঁদমুনি-১ গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান রবিউল ইসলাম বলেন, পঞ্চায়েত থেকে যতটা সম্ভব কুমারিয়া গ্রামের মৃত শ্রমিক বাদিরুদ্দিনের অসহায় পরিবারকে সাহায্য করা হবে। এলাকার জেলা পরিষদ সদস্য হুমায়ুন কবির বাজনা এপ্রসঙ্গে জানান, তিনি ব্লক প্রশাসনকে বলে একটি পাকা ঘরের ব্যবস্থা করে দেবেন। রতুয়া-১’এর বিডিও সারওয়ার আলি বলেন, মৃত ওই পরিযায়ী শ্রমিকের পরিবার আবেদন করলে সাহায্যের বিষয়টি ভাবা হবে।