প্রতিশ্রুতির বন্যাতেও দিন বদলায়নি বন্ধ রায়পুরের শ্রমিকদের

64

জলপাইগুড়ি: চারিদিকে এখন শুধু ভোটের প্রচার। মানুষকে ভালো রাখতে দেওয়া হচ্ছে দেদার প্রতিশ্রুতি। এরই মধ্যে নিজেদের দু বেলা পেটের ভাতের ব্যবস্থা করতে ভুখা মিছিলের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বন্ধ রায়পুর চা বাগানের শ্রমিকরা।

২০১৮ সালের ১২ সেপ্টেম্বর থেকে বন্ধ হয়ে পড়ে রয়েছে রায়পুর চা বাগান। এর পর থেকে কার্যত মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে বেঁচে রয়েছেন জলপাইগুড়ি সদর থানার অধীনস্ত এই বাগানের ৬১৭ জন শ্রমিক। শ্রমিকরা জানান, ভোট আসে ভোট যায়। নেতারা প্রতিশ্রুতি দিলেও বাগান খোলেনা।

- Advertisement -

বাগানের শ্রমিক নেতা বিতনা বড়াইক ক্ষোভের সঙ্গে জানান, কেউ তাদের কথা দিয়ে কথা রাখেনি। ভোটে এসেছে এবারে নেতারা আসবেন কিন্তু তাদের দুর্দশার কোনও শেষ হবে কিনা জানা নেই। বাগানের কারখানা পুরোপুরি ভাবে পনেরো বছর ধরে বন্ধ। বর্ষার সময়ে শ্রমিক আবাস দিয়ে জল পড়ে। শীতের সময়ে হু হু করে ঠান্ডা ঢোকে। আবাসনগুলি পুরোপুরি বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। ডিরেক্টরস বাংলো থেকে ইঁট খসে খসে পড়ছে। বাধ্য মজুরি না পেয়ে ৮ মার্চ থেকে কাঁচা চা পাতা তুলে ৩২.৫০ টাকা দরে বিক্রি করছেন শ্রমিকরা। এই কাঁচা চা পাতা বিক্রি করে শ্রমিকদের মুজরি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কিন্তু তাও কতদিন চলবে তা অনিশ্চিত। ইতিমধ্যেই পিএফ এর টাকা জমা পড়ছে না। সামগ্রিকভাবে এনিয়ে চরম অনিশ্চয়তার মধ্যেই দিন কাটাতে হচ্ছে শ্রমিকদের।