মৈনাক চা বাগান খোলার দাবিতে আন্দোলনের পথে শ্রমিকদের একাংশ

চ্যাংরাবান্ধা: বুধবার থেকে লকআউট হয়ে গিয়েছে মৈনাক চা বাগান। যার জেরে মেখলিগঞ্জ ব্লকের চ্যাংরাবান্ধা, ভোটবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার অনেক শ্রমিক বিপাকে পড়েছেন। এবার বাগান খোলার দাবিতে প্রশাসনের দপ্তরের সামনে আন্দোলনে বসতে চলেছেন শ্রমিকদের একাংশ।

এদিকে বাগানের ধরলা ডিভিশনের দেবী কলোনি, ভায়লার ডাঙ্গা এলাকা থেকে গাছ এবং অবাধে কাঁচা চা পাতা চুরি হচ্ছে বলে বাগান কর্তৃপক্ষের তরফে মেখলিগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তও শুরু করা হয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। সব মিলিয়ে বাগান খোলা নিয়ে জটিলতা কাটার কোনও সম্ভাবনা এখনও তৈরি না হওয়ায় আন্দোলনের পথে যাচ্ছেন শ্রমিকদের একাংশ।

- Advertisement -

বিষয়টি নিয়ে রবিবার ভোটবাড়ির ধুদির বাড়িতে তাঁরা একটি বৈঠকেও সামিল হয়েছিলেন। আইএনটিটিইউসির নেতা মদনমোহন সরকার রবিবারের এই বৈঠকের কথা স্বীকার করে নিয়ে বলেন, বাগান চালুর দাবিতে সোমবার চ্যাংরাবান্ধায় বিডিওর দপ্তরের সামনে সামাজিক দূরত্ব মেনে অবস্থান বিক্ষোভ আন্দোলন করা হবে। পাশাপাশি যারা বাগানের পাতা চুরি করছেন, তাঁদের বিরুদ্ধেও কড়া পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি তাঁরা করেছেন।

যদিও মালিক পক্ষের তরফে রবিবার পরিস্কার জানানো হয়েছে, অপ্রীতিকর পরিস্থিতির সম্মুখীন হওয়ার কারণেই তারা বাগান বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয়েছেন। পাতা চুরির বিষয়েও তারা পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেছেন। একটি সূত্র মারফত জানা গিয়েছে, বাগানের ব্রহ্মপুর ডিভিশনে মালিক পক্ষকে অপ্রীতিকর অবস্থার সম্মুখীন হতে হয়।এমতাবস্থায় তারা চরম নিরাপত্তার অভাব বোধ করেন। এরপরই হঠাৎ করে বাগানে লকআউট হয়ে যায়।

এদিকে মালিকপক্ষ হঠাৎ করে বাগান বন্ধ করে চলে যাওয়ায় প্রচুর শ্রমিক সমস্যায় পড়েছেন। বর্তমানে কাঁচা চা পাতার ভালো দাম রয়েছে। এই অবস্থাতেও মালিকপক্ষের বাগান বন্ধ করে দেবার বিষয়টি নিয়ে নানা মহলে বিভিন্ন প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। তাদের বক্তব্য, কী এমন পরিস্থিতি হল যে যার জন্য কাঁচা চা পাতার ভালো বাজার থাকা সত্ত্বেও মালিক পক্ষ বাগান লকআউট করল। এবিষয়ে দ্রুত প্রশাসনিক হস্তক্ষেপের দাবি উঠেছে।

মৈনাক চা বাগানের বিষয়টি সম্পর্কে তিনি অবগত রয়েছেন বলে মেখলিগঞ্জ মহকুমার অ্যাসিস্ট্যান্ট লেবার কমিশনার সন্দীপ কর্মকার জানিয়েছেন।