কুড়ি শতাংশ হারে বোনাসের দাবিতে সাইলী ও কুমলাই চা বাগানে শ্রমিক বিক্ষোভ

286

মালবাজার: কুড়ি শতাংশ হারে বোনাসের দাবিতে ধরে আন্দোলন চলছে মাল ব্লকের সাইলী এবং কুমলাই চা বাগানে। সাইলী চা-বাগানের সাধারণ শ্রমিকেরা বুধবার বোনাসের দাবিতে আন্দোলন করেন। পরে তাদের প্রতিনিধিদের নিয়ে মালের বিডিও কার্যালয়ে বৈঠক হয়েছে। অন্যদিকে একটি শ্রমিক ইউনিয়নের আহ্বানে কুমলাই চা বাগানে গেট মিটিং হয়। প্রশাসনিক মহল সার্বিক পরিস্থিতির দিকে নজর রাখছে। বাগানের মালিক পক্ষের দাবি, আগেই শ্রমিক ইউনিয়ন গুলির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বদের সঙ্গে বৈঠক করে বোনাস নিয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে। তাছাড়া, এই অতিমারির সময়ে নতুন করে কুড়ি শতাংশ হারে দাবি যুক্তিযুক্ত নয়।

চা বাগান সূত্রে খবর, গত কয়েকদিন ধরে এই বাগানে বোনাস ইস্যুতে গেট মিটিং চলছিল। এদিন বাগানের প্রধান ডিভিশনের পাশাপাশি নিদিম এবং বেতবাড়ি ডিভিশনের শ্রমিকেরা দিনভর আন্দোলনে শামিল হন। ফলে আন্দোলনের ঝাঁজ অনেকটাই তীব্রতর হয়। শ্রমিকদের একটা অংশ ডামডিম মোড়ের দিকে এগোতে থাকে। তাদের সঙ্গে আলোচনা করে মিছিল রোধ করা হয়। পরে শ্রমিকদের সঙ্গে মালের বিডিও কার্যালয়ে প্রশাসনিক আধিকারিকেরা বৈঠক করেন। সাইলী চা-বাগানের সাধারণ শ্রমিক স্বপ্না প্রধান, রুথ টোপনো, অনিতা ধানওয়ার প্রমূখ মালের বিডিও কার্যালয়ে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। স্বপ্না প্রধান বলেন, আমাদের বাগানে সাড়ে পনেরো শতাংশ হারে বোনাস প্রদানের সিদ্ধান্ত হয়েছে। আমাদের দাবি অন্যান্য বাগানের মতো কুড়ি শতাংশ হারে বোনাস প্রদান করতে হবে।

- Advertisement -

মালের মহকুমা শাসক শান্তনু বালা, মহকুমা পুলিশ আধিকারিক দেবাশীষ চক্রবর্তী, মালের বিডিও বিমান চন্দ্র দাস, সরকারি শ্রম আধিকারিক চিয়ং সেরপা প্রমূখ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। শান্তনু বাবু বলেন, আমরা শ্রমিকদের দাবি নিয়ে আবেদন জমা দিতে বলেছি। তা সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন মহলের জানানো হবে। মালের সহকারি শ্রম আধিকারিক চিয়ং শেরপা বলেন, আগেই বোনাস নিয়ে বৈঠকে ফয়সালা হয়েছে। নতুন করে দাবি আসলে তা ঊর্ধ্বতন মহলের জানানো হবে। সইলী চা বাগানের ম্যানেজার বসন্ত প্রধানের সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তা সম্ভব হয় নি। বাগানের মালিক পক্ষের সংগঠন আইটিপিএ-এর উপদেষ্টা অমিতাংশু চক্রবর্তী বলেন, নিয়ম মোতাবেক বোনাস নিয়ে ফয়সালা হওয়ার পর নতুন করে বোনাস নিয়ে দাবি যুক্তিযুক্ত নয়। অতিমারি করোনা ভাইরাসের প্রকোপ চলছে। খোদ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উত্তরবঙ্গে প্রশাসনিক সফরে আছেন। সেখানে কেন এরকম আন্দোলন করা হচ্ছে তা বোধগম্য নয়।

অন্যদিকে মাল ব্লকের ডামডিম গ্রাম পঞ্চায়েতের কুমলাই চা-বাগানেও বোনাস ইস্যুতে গেট মিটিং শুরু হয়েছে। এদিন তরাই ডুয়ার্স প্লান্টেশন ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের আহ্বানেই গেট মিটিং হয়েছে। ইউনিয়নের নেতা ইন্দ্রজিত দাস বলেন, আমাদের বাগানে সাড়ে ১৩ শতাংশ হারে বোনাস প্রদানের কথা বলা হয়েছে। সাধারণ শ্রমিকদের দাবি কুড়ি শতাংশ হারে বোনাস প্রদান করা হোক। ইতিমধ্যে এ বিষয়ে আলোচনা চেয়ে শ্রমিক ইউনিয়নের পক্ষ থেকে সম্মিলিতভাবে বাগান কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত আবেদন জমা দেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে কুমলাই চা বাগানের ম্যানেজার ভরত শর্মা বলেন, কেন্দ্রীয় শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃত্বদের উপস্থিতিতে আগেই বোনাস নিয়ে ফয়সালা হয়েছে। সেখানে নতুন করে দাবি করে আন্দোলন কাম্য নয়। এদিকে প্রশাসনিক মহল দুটি চা বাগানের পরিস্থিতির দিকে নজর রাখছে।