কুস্তিগির হত্যায় নাম জড়াল গ্যাংস্টারের

নয়াদিল্লি : দিল্লির ছত্রশাল স্টেডিয়াম কুস্তিগির সাগর ধনখড় হত্যার ঘটনায় রাজধানী এলাকার এক কুখ্যাত গ্যাংস্টারের নাম জড়িয়েছে। এমনকি দিল্লি পুলিশ সূত্রে খবর, ওই দুষ্কৃতীর থেকে রক্ষা পেতে জেলে বিশেষ নিরাপত্তার আর্জি জানিয়েছেন সুশীল কুমার।

৪ মে সাগরের পাশাপাশি আরও দুজনকে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। জানা গিয়েছে, তাদের মধ্যে সোনু নামের একজনের সঙ্গে কুখ্যাত দুষ্কৃতী সন্দীপ ওরফে কালা জাঠেদির পারিবারিক সম্পর্ক রয়েছে। সন্দীপ সম্পর্কে সোনুর কাকা। সোনুর বিরুদ্ধেও খুন সহ বিভিন্ন অপরাধের ১৯টি মামলা রয়েছে। সেই সোনুকে মারধর করে একপ্রকার সন্দীপের সঙ্গে শত্রুতা করেছেন সুশীল। তবে বিষয়টি নিয়ে সন্দীপের সঙ্গে মিটমাট করতে চেয়েছেন তিনি। পুলিশের নাগাল এড়িয়ে পালিয়ে বেরানোর সময়ও তিনি দুবাইয়ে থাকা এই গ্যাংস্টারের সঙ্গে নিয়মিতভাবে যোগাযোগ করেছেন। কিন্তু তাতে কাজের কাজ হয়নি। ফলে সাগরের মৃত্যু নিয়ে কোনও বিকার না থাকলেও নিজের নিরাপত্তা নিয়ে একাধিক অলিম্পিক পদকের মালিক এই কুস্তিগির বেশ উদ্বিগ্ন।

- Advertisement -

সন্দীপ ও সুশীলের সম্পর্ক প্রসঙ্গে দিল্লি পুলিশের এক কর্তা জানিয়েছেন, বিরোধের সূত্রপাত মডেল টাউনের ফ্ল্যাট নিয়ে। ওই ফ্ল্যাটে বিভিন্ন সময়ে সন্দীপ ও আরেক দাগী দুষ্কৃতী লরেন্স বিষ্ণোই (সলমন খানকে খুনের হুমকি দিয়ে শিরোনামে আসে) গ্যাংয়ের সদস্যরা আশ্রয় নিত। দিল্লিতে সন্দীপের প্রতিনিধি সোনুর বন্ধু হিসেবে সাগরও ওই ফ্ল্যাটে থাকতেন। সুশীল ও তাঁর সঙ্গীরা ওই ফ্ল্যাট ছাড়ার জন্য সাগরকে চাপ দিচ্ছিলেন। তাতে কান না দিয়ে সাগররা পাল্টা সুশীলের নামে গালিগালাজ করেন। এরপরই তাদের শিক্ষা দেওয়ার জন্য স্টেডিয়ামে নিয়ে গিয়ে মারধর করা হয়। এমনকি নিজের নামের ওজন বাড়ানোর জন্য সুশীল সেই মারধরের ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার পরিকল্পনাও নিয়েছিলেন। সেই ভিডিও অবশ্য সুশীলের বিরুদ্ধে পুলিশের বড় অস্ত্র হয়ে গিয়েছে।