সেরা কিপার পাপালি, বিশ্বাস বজায় মান্তু, রমেন্দ্রনারায়ণ মিশ্রদের

193

শুভময় সান্যাল, শিলিগুড়ি : আশায় বাঁচে চাষা। ঋদ্ধিমান সাহাকে নিয়ে শিলিগুড়ির অবস্থা সেরকমই। দিনরাতের টেস্টে ব্যাটিং ব্যর্থতায় টানা তিন ম্যাচে একাদশে জায়গা হয়নি তাঁর। পরিস্থিতি কঠিন করেছে ঋষভ পন্থের পারফরমেন্স। তারপরও ঘরের ছেলে পাপালির প্রতি ভরসা হারাননি মান্তু ঘোষ, রমেন্দ্রনারায়ণ মিশ্ররা। তাঁরা আশায়, ঘরের মাঠে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজে উইকেটকিপিংয়ের দায়িত্ব থাকবে দেশের সেরা উইকেটরক্ষক ঋদ্ধিমানের কাঁধে। ক্রিকেটজগতের লোক না হলেও শহরের ছেলেকে খেলতে দেখবেন বলেই টিভি খুলেছিলেন টেবিল টেনিসে প্রাক্তন জাতীয় চ্যাম্পিয়ন মান্তু ঘোষ। বলেছেন, ওকে টেস্টে না দেখে কষ্ট পেয়েছিলাম। দলে সুযোগ না পেলে মনের অবস্থা কী হয় আমি জানি। টেকনিকাল দিক থেকে ঋদ্ধিমানই কিন্তু দেশের সেরা উইকেটরক্ষক। আমি নিশ্চিত ইংল্যান্ড সিরিজে অবস্থার পরিবর্তন হবে। আবার পুরোনো ছন্দে ঋদ্ধিকে দেখতে পাব।

শিলিগুড়ি বয়েজ হাইস্কুলের প্রাক্তন ছাত্র ঋদ্ধিমানের ওপর ভরসা আছে স্কুলের ক্রীড়া শিক্ষক দেবেশ দে-র। তিনি বলেছেন, প্রত্যেকদিন সকলের সমান যায় না। ভারতীয় ক্রিকেটে এই মুহূর্তে প্রতিভার ছড়াছড়ি। আশা করব নির্বাচকরা ওকেও প্রমাণ করার সুযোগ দেবেন। ইংল্যান্ড সিরিজেই ওকে পুরোনো ফর্মে দেখা যাবে। অগ্রগামী সংঘে খেলার সময় ঋদ্ধির সতীর্থ রমেন্দ্রনারায়ণ মিশ্র ক্ষোভের সুরে বলেছেন, শুধু দুটো ইনিংসের কথা বললে হবে? দায়িত্বজ্ঞানহীন শটে কতবার ঋষভ উইকেট উপহার দিয়েছে, সেই খবর কী রাখবেন না? টার্নিং ট্র‌্যাকে ঋদ্ধির কিপিং দক্ষতার কথা কিন্তু ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা সবাই স্বীকার করেন। এরপরই তিনি পরিস্থিতি বিবেচনা করে টিম ম্যানেজমেন্টের উদ্দেশে প্রস্তাব রেখেছেন, নিজে রান করার মতো বিপক্ষের সেরা ব্যাটসম্যানকে হাফ চান্সে ফিরিয়ে দেওয়াও গুরুত্বপূর্ণ। এই জায়গাটাতে ঋদ্ধিমান কিন্তু যে কোনও উইকেটরক্ষকের থেকে এগিয়ে আছে। উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান আর ব্যাটসম্যান-উইকেটকিপারের ফারাকটা আগে বুঝতে হবে। ঋষভকে একাদশে রাখতে চাইলে ওকে বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যানের ভূমিকায় খেলিয়ে ঋদ্ধিকে কিপিংয়ের দায়িত্ব দেওয়া যেতে পারে। আশাবাদী ঋদ্ধির বাবা প্রশান্ত সাহাও। তিনি বলেছেন, দলে সুযোগ দেওয়া না দেওয়া টিম ম্যানেজমেন্টের হাতে। ভারতীয় দলে এত চোট-আঘাত দেখে ভেবেছিলাম ব্রিসবেন টেস্টে ওকে দেখতে পারব। ঋদ্ধিকে উজ্জীবিত করতে তিনি সামনে তাকানোর পরামর্শ দিয়েছেন। বলেছেন, বয়স নিশ্চয়ই ওর বাড়ছে। কিন্তু এখনও ও ফিট রয়েছে। ওকে বলব, লড়ে যাও, ফল পাবে।

- Advertisement -