আমিরের সঙ্গে অভিনয়, স্বপ্নের উড়ানেই সওয়ার সোনম

293

বিদেশ বসু, মালবাজার : সিনেমায়, টিভিতে তো অনেকবার দেখেছি। তবে আমির খানকে য়ে একদম সামনাসামনি দেখতে পাব, স্বপ্নেও ভাবিনি। অকপট স্বীকারোক্তি সোনম রিকা তামাংয়ের। গরুবাথানের এই বছর বাইশের তরুণীর এখন ক্রিকেটের পরিভাষায় যাকে বলে, স্বপ্নের স্পেল চলছে। একদিকে অ্যামাজন প্রাইমের মতো ওটিটি-তে মুক্তি পেতে চলেছে ওয়েব সিরিজ। আবার খোদ মিস্টার পারফেকশনিস্টের সঙ্গে রুপোলি পর্দায় একসঙ্গে কাজ করবার সুযোগ। তবে উল্কার গতিতে উত্থানের পিছনে লুকিয়ে রয়েছে সোনমের অনেক পরিশ্রম ও ঘাম। একবাক্যে মানছেন সোনমের বাড়ির লোকজন ও প্রতিবেশীরা।

কালিম্পং জেলার সীমান্তবর্তী ব্লক গরুবাথান। সেখানে পান্ডারা মোড় থেকে সোমবাড়ি বাজারের দিকে যে রাস্তাটা গিয়েছে, তা ধরে কিছুটা এগোলেই তামাং পরিবারের বাড়ি। বাবা রাজেন তামাং বিহারে কর্মরত। মা রমলা গৃহবধূ। ভাই রীতেশ সদ্য উচ্চমাধ্যমিক পাশ করেছে। নাচ ও অভিনয়ে যে মেয়ের আলাদা প্রতিভা রয়েছে, সেকথা সোনমের অল্প বয়সেই বুঝে গিয়েছিলেন তামাং দম্পতি। গরুবাথানেই ক্লাসিকাল নাচের প্রাথমিক প্রশিক্ষণ। এরপর মাল শহরের একটি নৃত্যগোষ্ঠীতে যোগ দেন সোনম। ২০১৯ সালের এই নাচের সুবাদেই সরোজ সম্মান পুরস্কার পান তিনি। নৃত্যের পাশাপাশি মডেলিংয়ের ঝোঁক বাড়ে। এসবের জন্য কিন্তু তাঁকে কম দৌড়ঝাঁপ করতে হয়নি।

- Advertisement -

তখন পাহাড়ের রাজনীতিতে টালমাটাল সময় চলছে। মাঝেমধ্যেই পাহাড় বনধ। যানবাহন বন্ধ থাকায় হেঁটেই গরুবাথান থেকে ভুট্টাবাড়ি বনাঞ্চল পেরিয়ে মাল ব্লকের মীনগ্লাস চা বাগান পর্যন্ত চলে আসতেন সোনম। তারপর সেখান থেকে কোনওমতে গাড়ি ধরে সোজা মাল শহর। যত সমস্যাই হোক, নাচ বন্ধ করেননি।

এসব করতে করতেই ওয়েব সিরিজে সুযোগ। আবার তারই মধ্যে অনলাইন অডিশনের মাধ্যমে আমির খানের সঙ্গে লাল সিং চাড্ডা চলচ্চিত্রে অভিনয়ে সুযোগও আসে। সেজন্য মুম্বই যেতে হয়েছে তাঁকে। সোনম বলেন, সিনেমায় ৪-৫ জন চিনা মহিলার প্রয়োজন ছিল। তাদের মধ্যেই একটি চরিত্রে আমাকে মনোনীত করা হয়। ছোট চরিত্র হলেও আমি দারুণ খুশি। আমির খানের সঙ্গে অভিনয়ে সুযোগ পাওয়াই আমার কাছে গর্বের। স্বপ্নের মতো তো বটেই।

আমিরের সঙ্গে অভিনয়ের অভিজ্ঞতা কেমন? সোনম রিকার ঘোর কাটছেই না, আমির খানকে শুটিংয়ে দেখে শিহরন জাগানো অনুভূতি হয়েছে। তিনি নিজে এসে আমাদের সঙ্গে কথা বলেছেন। অমায়িক ব্যবহার। উনি বলেন, তোমাদের চিনের মহিলাদের চরিত্রে অভিনয় করতে হল। এর জন্য কি কিছু মনে করলে? তখন সকলে মিলে বলেছি, না, আমরা দারুণ খুশি।

সোনমের সাফল্যে উচ্ছ্বসিত পরিজনদের পাশাপাশি প্রশাসনও। গরুবাথানের বিডিও সৌভিক বসু বলেন, আমাদের পাহাড়ি এলাকায় অনেক প্রতিভা আছে। আমরা প্রার্থনা করি তাঁর প্রতিভার বিকাশ হোক।

মা রমলা তামাং কন্যার আরও সাফল্যের দিকে তাকিয়ে রয়েছেন। সোনম রিকা নিজে? আমিরের সঙ্গে অভিনয়ে স্মৃতি নিয়ে চাইছেন আরও এগিয়ে যেতে। আর সোনমের পরিজন ও প্রতিবেশীরা অপেক্ষায় রয়েছেন, সোনমের ওয়েব সিরিজ ও সিনেমা কবে মুক্তি পাবে, তার।