সাপের ছোবলে মৃত্যু যুবকের

1106
প্রতীকী ছবি।

বর্ধমান: ওঝার কেরামতি-ঝাড়ফুঁক কোনও কাজেই এল না। সঠিক সময়ে হাসপাতালে নিয়ে না যাওয়ায় মৃত্যু হল বিষধর সাপের ছোবল খাওয়া খেতমজুরের। মৃতের নাম অলোক দাস (৩০)। পূর্ব বর্ধমানের পূর্বস্থলী থানার রামচন্দ্রপুর এলাকার ঘটনা। সোমবার কালনা হাসপাতালের পুলিশ মর্গে মৃতের দেহের ময়নাতদন্ত হয়। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

মৃতর আত্মীয় কাজল দাস জানিয়েছেন, রবিবার দুপুরে অলোক সহ পাঁচ বন্ধু মিলে জমিতে ধানগাছ কাটছিল। ওই সময়ে অলোকের পায়ে বিষধর সাপ ছোবল মারে। মৃতের বন্ধু স্বপন প্রামানিক বলেন, ঘটনা পর আমরা অলোককে হাসপাতালে নিয়ে যাবার জন্য অ্যাম্বুলেন্সে খবর দিই। কিন্তু অ্যাম্বুলেন্স আসার জন্য অপেক্ষা না করে পরিবারের লোকজন অলোককে স্থানীয় এক ওঝার বাড়িতে নিয়ে যান। সেখানে ওঝা দীর্ঘক্ষণ ঝাড়ফুঁক ও নানা কেরামতি করেন। কিন্তু তাতে কাজের কাজ কিছু হয় না। ততক্ষণে অনেকটা সময় পেরিয়ে যায়। অলোকের শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে শুরু করে। পরে পরিবারের লোকজন অলোককে শ্রীরামপুর গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

- Advertisement -

শোকস্তব্ধ অলোকের বন্ধু সুব্রত দাস এদিন বলেন, কোটি কোটি টাকা খরচ করে জেলায় ও মহকুমায় গড়ে উঠেছে সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল, চিকিৎসা পরিকাঠামোরও উন্নতি হয়েছে। হাসপাতালে সাপে কামড়ানো রোগীর চিকিৎসার ব্যবস্থা রয়েছে। কিন্তু আজও কুসংস্কারমুক্ত হতে পারেননি গ্রামের মানুষজন। আমার বন্ধু অলোককে সেই কুসংস্কারের বলি হতে হল।