বিয়ে পাগল যুবকের কীর্তিতে থরহরি কাঁপুনি গোটা গ্রামের

890

ভুবনেশ্বর : প্রেমের খেলা কে বুঝিতে পারে! কিউপিডের তির কিংবা মদনদেবের বাণ বুকে বিঁধলে তখন কোথায় থাকে ভূগোল, বিজ্ঞান! কোথায় থাকে যুক্তিবোধ ও জীবনের ভয়! সেটা আরও একবার প্রমাণ হয়ে গেল ওডিশার বালেশ্বরের এক যুবকের কাণ্ডকারখানায়। গত এপ্রিলে প্রেমাস্পদকে সাত পাকে বাঁধতে লকডাউন ও কনটেনমেন্টের নিয়ম ভেঙে হটস্পট বাংলার পূর্ব মেদিনীপুরে ঢুকে পড়েছিলেন তিনি। পুলিশ ও স্বাস্থ্যকর্মীদের চোখে ধুলো দিয়ে জাঁকজমক করে বিয়ে করার পর জানা গেল, তিনি করোনা পজিটিভ। এখন তাঁর বন্ধুবান্ধব, আত্মীয়স্বজনরা প্রাণ বাঁচাতে হাসপাতালে ছুটেছেন করোনা পরীক্ষা করাতে। তাঁর স্ত্রী এবং শ্যালিকার রিপোর্ট নেগেটিভ এলেও চিন্তায় রয়েছেন বিয়ের অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়া গ্রামবাসীরা।

খবরটি নজরে আসার পর ইতিমধ্যে ওই যুবকের সংস্পর্শে আসা ১৬০ জনকে চিহ্নিত করে পর্যবেক্ষণে রাখার পাশাপাশি তাঁদের লালারসের নমুনা পাঠানো হয়েছে পরীক্ষা করার জন্য। জানা গিয়েছে, বালেশ্বরের ভোগারাই ব্লকের পলাসিয়া গ্রামের বাসিন্দা ওই যুবক কর্মসূত্রে থাকেন বেঙ্গালুরুতে। সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর সঙ্গে আলাপ ও প্রেম হয় পূর্ব মেদিনীপুরের এক তরুণীর। কয়েকমাস কথাবার্তার পর গত ১৭ এপ্রিল তাঁদের বিয়ে ঠিক হয়। ইতিমধ্যে দেশজুড়ে করোনা মহামারির জেরে শুরু হয়েছে লকডাউন। প্রশাসন জানিয়ে দেয়, বিয়ের অনুষ্ঠান হলেও ১০ জনের বেশি জমায়েত করা যাবে না। সেসব বিধিকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে নির্দিষ্ট দিনে ১৬টি বাইক হাঁকিয়ে ৩০ জন বরযাত্রী সমেত রামনগরে এসে বিয়ে করে বউ নিযে বাড়ি ফেরেন ওই যুবক। এরপরই করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে তাঁর। খবরটা পাড়াপড়শিদের কানে যেতেই তাঁরা তা জানান আশাকর্মীদের। স্থানীয় পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য সুনীল কর বলেন, ধুমধাম করে বিয়েটা হয়নি। গ্রামের ভিতরের রাস্তা দিয়ে বরযাত্রী ও নিমন্ত্রিতরা এসেছিলেন বলে নজরে পড়েনি কারও। সম্ভবত বেঙ্গালুরুতেই করোনা আক্রান্ত হন ওই যুবক। কিন্তু উপসর্গহীন হওয়ায় ধরা যায়নি। বিয়ের আগে ও পরে তিনি বহুজনের সঙ্গে মিশেছেন। এমনকি মাঠে ধান তোলার কাজও করেছেন বলে খবর। গত এক মাসে তাঁর সান্নিধ্যে আসা সমস্ত মানুষকে চিহ্নিত করতে এখন কালঘাম ছুটছে বালেশ্বর প্রশাসনের। বালেশ্বরের উপজেলা শাসক নীলু মহাপাত্র জানিয়েছেন, যুবককে কোভিড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাঁর বাবা হার্টের রোগী। তাঁর ওপর নজর রাখা হয়েছে। যুবক যে গ্রামের বাসিন্দা সেটি সহ আশপাশের ৬টি গ্রামকে কনটেনমেন্ট জোন ঘোষণা করে আগামী ১৯ মে পর্যন্ত প্রবেশ-প্রস্থান সহ সবকিছু বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

- Advertisement -