প্রতিভাই শক্তি,  ইউটিউবে সাফল্য কোচবিহারের নবীনদের

73

ফ্যান ফলোয়িং কি শুধু বলিউড, টলিউডের অভিনেতাদেরই থাকে? ডিজিটাল যুগে তা যে সত্য নয়, সেটা প্রমাণ করেছেন ইউটিউবাররা। দর্শকদের মন জয় করে ফ্যান ফলোয়িং বাড়ানোর পাশাপাশি প্রতিষ্ঠিত হচ্ছেন অনেকেই। পিছিয়ে নেই কোচবিহারের মানুষও। খোঁজ নিলেন শিবশংকর সূত্রধর

মধ্যবিত্ত পরিবার থেকে উঠে এলেও স্রেফ প্রতিভার জোরে নিজেদের স্বপ্ন পূরণ করেছেন ইয়ং জেনারেশনের অনেকেই। কেউ নানা জায়গায় ঘুরে ভ্লগিং করছেন, আবার কেউ মোটিভেশনাল বক্তব্য দিয়ে দর্শকদের মন জয় করছেন। ইউটিউবে ভাওয়াইয়া, ঝুমুরের মতো লোকসংগীতকে আধুনিক মোড়কে পরিবেশন করেও কেউ কেউ তুমুল জনপ্রিয়তা পেয়েছেন। আবার কেউ কম খরচে বেকারত্ব ঘুচিয়ে কীভাবে নিজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠা করা যায়, সেবিষয়ে নানা আইডিয়া দিচ্ছেন। সবমিলিয়ে ভিন্ন স্বাদের ভিডিও বানিয়ে লক্ষ লক্ষ মানুষের পরিচিত মুখ হয়ে উঠেছেন কোচবিহার জেলার ইউটিউবাররা।

- Advertisement -

কোচবিহার তো বটেই, সারারাজ্যে ইউটিউব সহ সোশ্যাল মিডিয়ায় পরিচিত মুখ মৃন্ময় দাস। রাজ্যের অন্যতম ইউটিউবার তিনি। সিনেবাপ ও সিনেবাপ মৃন্ময় নামে দুটি ইউটিউব চ্যানেলে কমেডি, মিউজিক ও ভ্লগ আপলোড করেই বাজিমাত করেছেন তিনি। তাঁর ভ্লগে উত্তরবঙ্গের নানা জায়গার ছবি ফুটে ওঠে। সব মিলিয়ে মৃন্ময়ে ১৫ লক্ষেরও বেশি সাবস্ক্রাইবার রয়েছেন। ২০১৮ সাল থেকে নিয়মিত ইউটিউবে ভিডিও আপলোড করছেন। কোচবিহার শহর লাগোয়া খাগড়াবাড়ির বাসিন্দা মৃন্ময় নিয়মিত ভিডিও তৈরি করেন। নিজের চ্যানেলে যশ, নুসরতদের নিয়ে তাঁদের অভিনীত একটি সিনেমার প্রোমোশন করেছিলেন মৃন্ময়। তাঁর ভিডিওর জনপ্রিয়তায় সকলের কাছে পরিচিত মুখ হয়ে উঠেছেন।

ইনস্পায়ার ইয়ং ইন্ডিয়ান ও অদ্ভূতুড়ে রহস্যের সন্ধানে নামে দুটি ইউটিউব চ্যানেল রয়েছে কোচবিহারের দীপঙ্কর রায়ের। দুটি মিলে সাবস্ক্রাইবার ১১ লক্ষেরও বেশি। অনেকের জীবনেই হতাশা একটি সবচেয়ে বড় সমস্যা। হতাশা কাটিয়ে কর্মজীবনে সফল হওয়ার উপায় কী? কীভাবেই বা পড়াশোনায় মনঃসংযোগ করা উচিত? কোনও ঘটনার জন্য নিজে ভেঙে পড়লে ফের উঠে দাঁড়িয়ে কীভাবে সাফল্য পাওয়া সম্ভব? এধরনের অনুপ্রেরণামূলক নানা ভিডিও তৈরি করে প্রথম চ্যানেলে আপলোড করেন। অন্যটিতে ভূতুড়ে গল্প, কল্পবিজ্ঞানের নানা কাহিনী তুলে ধরেন। ইউটিউবে বেশ জনপ্রিয় শহর লাগোয়া নাট্যসংঘের বাসিন্দা দীপঙ্কর।

ইউটিউব জগতে আরও একটি পরিচিত নাম বাণী রায়। দীপঙ্করের মতো তিনিও দুই বছর থেকে মোটিভেশনাল ভিডিও তৈরি করছেন। এর পাশাপাশি আবৃত্তির ভিডিও পোস্ট করেন তিনি। বাণীর কণ্ঠে মৃগাঙ্ক চক্রবর্তীর লেখা ছেলেদের কাঁদতে নেই শীর্ষক আবৃত্তি প্রথম ভাইরাল হয়। এরপর থেকেই তাঁর জনপ্রিয়তা বাড়ে। বর্তমানে তাঁর ইউটিউব চ্যানেলে ১ লক্ষ ৬ হাজার সাবস্ক্রাইবার রয়েছেন। ফেসবুকে ৪ লক্ষ ৬৫ হাজার ফলোয়ার্স। বাণী রায়ের মোটিভেশনাল নানা বক্তব্য সোশ্যাল মিডিয়ায় নিয়মিত দেখা যায়। তাঁর পর্যবেক্ষণ, শুধু ভিডিও করাই নয়। সাধারণ মানুষ, বিশেষ করে নতুন প্রজন্ম নানা সমস্যায় পড়লে তা থেকে বেরিয়ে আসার উপায় বলে দিই। প্রতিদিন অন্তত ১৫০-২০০ জন সোশ্যাল মিডিয়ায় আমাকে সমস্যার কথা জানান। চেষ্টা করি, প্রত্যেককে সাজেশান দেওয়ার। সেজন্য অবশ্য নিজেও নিয়মিত পড়াশোনা করি।

তুফানগঞ্জের বাসিন্দা জয়জিৎ বর্মার জয়জিৎ ডান্স নামে একটি ইউটিউব চ্যানেল রয়েছে। যেখানে লোকসংগীতের উপর নানা নাচের ভিডিও নিয়মিত আপলোড করা হয়। মূলত জয়জিতের নাচের শিক্ষার্থীরাই সেখানে অভিনয় করেন। চ্যানেলে ৬ লক্ষ ৫৪ হাজার সাবস্ক্রাইবার রয়েছেন। জয়জিতের কথায়, ২০১৯ সালে ঝুমুর নৃত্যের একটি ভিডিও ইউটিউবে সাড়ে ৩ কোটি বারেরও বেশি দেখা হয়েছে। কোচবিহার তথা উত্তরবঙ্গের স্থানীয় নানা কৃষ্টি-সংস্কৃতি তুলে ধরার চেষ্টা করছি।

চাকরির আশায় না থেকে স্বল্প পুঁজি কিংবা সঠিক পরিকল্পনা নিয়ে কীভাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করা যায় তার উপায় খুঁজে বের করে দিচ্ছেন কোচবিহারের যুবক প্রসেনজিৎ বর্মন। ইউনিক বিজনেস আইডিয়া নামে একটি চ্যানেল রয়েছে প্রসেনজিতের। কীভাবে কম খরচে বিভিন্ন ব্যবসা করা যায়- তা নিয়ে বিভিন্ন ভিডিও তৈরি করে পরামর্শ দেন তিনি। সেই ভিডিও দেখে বহু মানুষ নতুন ব্যবসা করে প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন। বর্তমানে তাঁর পাঁচ লক্ষ ৪৮ হাজার সাবস্ক্রাইবার রয়েছেন।

ইউটিউবাররা জানিয়েছেন, সোশ্যাল মিডিয়ায় কাজ শুরুর সময় কেউই ভাবেননি এতটা জনপ্রিয় হবেন। তবে নিয়মিত কাজের মাধ্যমেই দর্শক বাড়ছে। সেই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে অনুরাগীদের সংখ্যাও। কোচবিহারের মৌনী রায়, জলপাইগুড়ির মিমি চক্রবর্তী বলিউড ও টলিউড মাতাচ্ছেন। তাঁরা কি এঁদের এ সব কীর্তিকাহিনী শুনছেন?